Frequently Asked Questions

The U.S. Department of State sponsors the whole program and covers all major expenses including airfare, U.S. visa fee, boarding and lodging in the United States, school tuition and monthly stipend of $125. Candidates will not bear any costs.

No! Applicants must be at least 15 years old and not a day older than 17 years old on 15th August, 2023, the program start date for 2023-2024 academic year of the YES Program. Therefore, the candidate’s date of birth needs to be between August 15, 2006 and August 15, 2008.

Yes. However, it is highly discouraged because only a specific number of scholars are selected and the selection process is costly. Only apply if you are seriously intending to participate in the program from the very beginning and have your family’s consent at all stages of the qualifying process.

No! The program is only for Bangladeshi nationals bearing a Bangladeshi passport. Anyone having a dual citizenship is ineligible for the program.

Each student will live with an American host family. The student can be placed in any state. Students are spread across the country with the help of the placement organizations. These organizations are approved by the Bureau of Educational and Cultural Affairs (ECA) of the U.S. Department of State.

Host families are average American families (usually from suburban regions), who volunteer to host exchange students for an academic year. They are very carefully chosen by the placement organizations. The host families receive no monetary profit from hosting the exchange students, but they do gain the company of the foreign exchange students who present to them their own culture and values. That is what inspires them to host in the first place.

The host families are as ethnically diverse as the population of the U.S. While English must be the first language spoken at home, many families are from various ethnic backgrounds. Students should be mentally prepared for, and be open, to the idea of being placed with host families from any type of ethnic and cultural background.

In addition, families of all religious backgrounds can be found in every American community. A host family can be of any faith or religion. Community Representatives attempt to ensure that female Bangladeshi students are not placed in families where there are boys over 13 years of age.

The Placement Organizations select the host families by matching them with students that have common interests as them. The potential host families are found through community service organizations, churches, athletic leagues, youth groups, foreign language classes, shopping malls, county and state fairs, advertising, etc. Every host family undergoes a criminal background check by the law enforcement authorities.

A student will develop various relationships during his/her stay in the U.S. during the YES program. The relationship of the student with the host family is at the heart of the cultural exchange and is likely to be the most important part of the year. All YES students need to possess a strong desire to be part of an American family and the willingness to accept distinct responsibilities in their new family. These responsibilities may include (for both male and female students) helping with household chores such as cooking, washing dishes, laundry, and cleaning as well as abiding by all the family rules, even if they differ from their natural family rules in Bangladesh. Having a domestic helper is extremely unusual in the U.S. Therefore, all household chores are done by the members of the family. Please note that American families and the American society in general, treat men and women equally; it is important to learn cultural and family norms and to abide by them. The student must exhibit flexibility, tactfulness, politeness, and maturity of character. YES students who expect to be treated like guests or be given special treatment in their American families are unlikely to excel in the program.

No! Students are not allowed to be hosted by their relatives in the USA, nor can they demand to be placed with relatives. Such visits are also strongly discouraged during the program year, especially during the initial adjustment period, as they can interrupt the relationship building with the host family, and may diminish the exchange experience for the student and the host family. Any unauthorized visit will result in dismissal from the program.

No! The program aims to teach people about religious and cultural coexistence. So, a scholar cannot demand a Muslim or a family of the same ethnicity.

Yes! You can pray and fast during Ramadan and practice your religion. The American constitution guarantees freedom of religion, and American families in the past have cooperated with students who want to practice their own religion.

Yes! All female students can continue to wear their headscarves in schools, in the family, and whenever or wherever they choose to wear it. There are several American Muslims who do wear Hijab in accordance with the faith.

The scholars may choose to be exempted from performing activities, which require them to wear outfits that make them uncomfortable or may go against their religious and cultural values.

Halal food can be purchased from the Halal food shops in the community or be ordered by mail/post. However, no student can demand it from the host parents. Students can buy Halal food with their own pocket money, and should be willing to cook/make their own meals. Host families are not

No! The scholarship does not guarantee a High School diploma. The students may be enrolled in grades 9, 10, 11 or 12 in a U.S. high school. They will be given a transcript for the subjects they have studied, and other achievement certificates for their accomplishments during the program.

It depends on the American high school you will attend, the education system you are from, and the grade you will complete in the United States. For many of the cases, the answer is “NO” but it is possible that you may have to repeat a year in Bangladesh. Upon your return you can apply for an “equivalence certificate” from the Education Board of Bangladesh to help you get admitted in a University or other institutions (if it applies to you).

Immunization records are very important for every scholar. Other than some common immunization requirements, special vaccinations may be needed to be administered, depending on the host state’s requirement. Students also need to pass the tuberculosis (TB) skin test to attend the program.

It is impossible for a scholar to stay in the United States after the end of the program. It is against the program rules, and anyone who breaks the rule will be a federal offender. He or she will never be able to get a visa for the United States again.

YES. Exchange Students go to the United States with a J-1 Exchange Visitor Visa. It has a two-year homestay requirement that prohibits students from emigrating to the U.S. or receiving a U.S. work visa in those two years after the program.

  • Round-trip airfare from your home country to the United States
  • The cost of a Pre-Departure Orientation
  • Placement with a U.S. host family for 10 to 11 months
  • A modest monthly stipend
  • Health insurance and
  • The cost of program activities and materials
YES প্রোগ্রাম সম্পর্কে যে সকল প্রশ্ন-উত্তর আবেদনকারীর জেনে রাখা আবশ্যক

YES প্রোগ্রামের ব্যয়ভার অর্থাৎ বিমান ভাড়া, মার্কিন ভিসা ফি, যুক্তরাষ্ট্রে থাকা-খাওয়া, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেতন এবং মাসিক ১২৫ ডলারের হাতখরচ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরকারের স্বরাষ্ট্র বিভাগ বহন করে । অংশগ্রহণকারীকে কোন খরচ বহন করতে হবে না।

না, আবেদনকারীর বয়স ২০২২ সালের ১৫ই আগস্ট (২০২২-২০২৩ শিক্ষাবর্ষের YES প্রোগ্রাম শুরুর তারিখ ) এ সর্বনিম্ন ১৫ এবং সর্বোচ্চ ১৭ বছর হতে হবে। অতএব আবেদনকারীর জন্মতারিখ ১৫ই অগাস্ট ২০০৫ থেকে ১৫ই অগাস্ট ২০০৭ এর মধ্যে হতে হবে।

হ্যাঁ, কিন্তু আমরা এইরকম পদক্ষেপ দৃঢ়ভাবে নিরুৎসাহিত করি, কেননা শুধুমাত্র খুবই সীমিত সংখ্যক আবেদনকারী চূড়ান্ত বাছাই পর্বে টিকবে, এবং বাছাই পর্ব অত্যন্ত ব্যয়বহুল। অতএব, প্রথম থেকেই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের ব্যাপারে দৃঢ় থাকতে হবে এবং পরিবারের পূর্ণ সম্মতি নিয়ে আবেদন করতে হবে।

না , এই প্রোগ্রামটি শুধুমাত্র বাংলাদেশী পাসপোর্ট সহ বাংলাদেশী জাতীয়তা আছে তাদের জন্য প্রযোজ্য। কোনো আবেদনকারীর দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকলে, তিনি অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

প্রতিটি শিক্ষার্থী একটি আমেরিকান হোস্ট ফ্যামিলির সাথে বসবাস করবে। শিক্ষার্থীকে আমেরিকার যেকোন অঙ্গরাজ্যে বসবাস করতে হতে পারে, যেটার ব্যবস্থা আমেরিকান প্লেসমেন্ট সংস্থাসমূহ করে থাকে । এই সংস্থাগুলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র বিভাগের শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক (ECA) ব্যুরো দ্বারা অনুমোদন প্রাপ্ত।

হোস্ট ফ্যামিলি হচ্ছে সাধারন আমেরিকান পরিবার যারা এক শিক্ষাবর্ষের জন্য স্বেচ্ছায় শিক্ষার্থীদের নিজেদের পরিবারের সদস্য হিসেবে বাস করতে দেন। পরিবারগুলোকে প্লেসমেন্ট সংস্থা অনেক বিচার-বিবেচনার পর বাছাই করে। শিক্ষার্থীদের নিজ বাসায় স্থান দেয়ার জন্য পরিবারগুলি কোন প্রকার বৃত্তি কিংবা ভাতা পান না, কিন্তু তাঁরা শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে তাদের সংস্কৃতি ও মূল্যবোধ সম্পর্কে ধারনা লাভ করেন। এটিই তাদের “হোস্টিং” এর জন্য অনুপ্রেরণা।

হোস্ট ফ্যামিলিগুলো যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যার মতই বৈচিত্র্যময়। তাদের যোগাযোগের জন্য ইংরেজি মূল ভাষা হওয়া সত্ত্বেও তাদের জাতিগত পটভূমি ভিন্ন। তাই শিক্ষার্থীদের যেকোনো সাংস্কৃতিক পটভূমি ও জাতিগত সম্প্রদায়ের পরিবারের সাথে থাকার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে।

এছাড়াও, আমেরিকান সম্প্রদায়ে বিভিন্ন ধর্মীয় পরিবার রয়েছে । একটি হোস্ট ফ্যামিলি যেকোনো বিশ্বাস বা ধর্মের হতে পারে। তবে, কমিউনিটি প্রতিনিধিরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন এমন একটি পরিবার খুজে বের করার, যেই পরিবারে ১৩ বছরের উর্ধে কোনো বালক সন্তান বসবাস করে না।

প্লেসমেন্ট প্রতিষ্ঠানসমূহ শিক্ষার্থীদের সাধারণ আগ্রহের সাথে মিলিয়ে হোস্ট ফ্যামিলির নির্বাচন করে। হোস্ট ফ্যামিলিগুলো সমাজসেবা প্রতিষ্ঠান, চার্চ, অ্যাথলেটিক লীগ, যুব সংঘ, বিদেশী ভাষার ক্লাস, শপিং মল, কাউন্টি এবং প্রাদেশিক মেলা, বিজ্ঞাপন ইত্যাদির মাধ্যমে খোঁজা হয়। আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষ প্রতিটি হোস্ট পরিবারের ক্রিমিনাল ব্যাকগ্রাউন্ড পরীক্ষা করে দেখে।

YES প্রোগ্রামে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থাকাকালীন সময়ে একটি শিক্ষার্থী বিভিন্ন সম্পর্ক তৈরি করবে, যার মধ্যে এই প্রোগ্রামের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি সম্পর্ক হচ্ছে হোস্ট ফ্যামিলির সাথে শিক্ষার্থীর সম্পর্ক। সকল YES শিক্ষার্থীদের তাদের আমেরিকান পরিবারের সদস্য হওয়া এবং তাদের নতুন পরিবারের স্বতন্ত্র দায়িত্ব গ্রহণ করার ইচ্ছা থাকতে হবে। এই দায়িত্বগুলোর মধ্যে রয়েছে – (নারী-পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য) রান্নাবান্না, থালা-বাসন ধোয়া, লন্ড্রি, ঘর পরিষ্কার, এবং এর পাশাপাশি সেই বাড়ির পারিবারিক নিয়মগুলোও মেনে চলা। এমনকি যদি হোস্ট পরিবারের নিয়মগুলি নিজ পরিবারের নিয়ম থেকে বেশ ভিন্নও হয়, তাও সেগুলো শ্রদ্ধা করতে হবে এবং মেনে চলতে হবে। যেহেতু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সাধারনত গৃহকাজের সাহায্যকারী নিয়োগ করা হয় না, সেহেতু সকল পরিবারের টুকিটাকি কাজ পরিবারের সদস্যরাই করে। অনুগ্রহপূর্বক মনে রাখা উচিৎ যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পরিবার এবং সমাজ, পুরুষ ও মহিলাদের সমানভাবে দেখে; সেখানে সাংস্কৃতিক এবং পারিবারিক নিয়ম শেখা এবং সেগুলো দৈনিক মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষার্থীদের নমনীয়তা, কৌশল্যতা, ভদ্রতা এবং পরিপক্বতা প্রদর্শন করতে হবে। যে শিক্ষার্থীরা তাদের আমেরিকান পরিবার থেকে অতিথিদের মত আপ্যায়ন আশা করবে, তাদের পক্ষে এই প্রোগ্রামে সফল হওয়া সম্ভব নয়।

না, শিক্ষার্থীর আমেরিকান আত্মীয় দ্বারা তাদের হোস্ট করার অনুমতি দেওয়া হয় না, এবং শিক্ষার্থীরা আত্মীয়দের সাথে থাকার দাবি করতে পারবে না। এমনকি, প্রোগ্রাম চলাকালীন এই ধরনের দেখা-সাক্ষাৎ, বিশেষত অ্যাডজাস্টমেন্ট সময়কালের মধ্যে নিরুৎসাহিত করা হয়, কারণ এটি হোস্ট ফ্যামিলির সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলার ধারাবাহিকতায় বাধা দেয় এবং শিক্ষার্থী ও হোস্ট ফ্যামিলির মধ্যে এক্সচেইঞ্জ অভিজ্ঞতাকে বাধাগ্রস্থ করতে পারে। যেকোনো অননুমোদিত পরিদর্শন শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রাম থেকে বরখাস্ত হওয়ার কারন হতে পারে।

না, প্রোগ্রামটি ধর্মীয় এবং সাংস্কৃতিক সহাবস্থানের শিক্ষা দেয়ার লক্ষ্য রাখে। সুতরাং, শিক্ষার্থীরা একটি মুসলিম বা একই জাতিগত পরিবারে থাকার দাবি করতে পারবে না।

হ্যাঁ, শিক্ষার্থীরা রমজান মাসে রোজা রাখতে এবং প্রোগ্রাম চলাকালীন তার ধর্মের চর্চা ও প্রার্থনা করতে পারবে। মার্কিন সংবিধান ধর্মের স্বাধীনতা নিশ্চিত করে, এবং অতীতে আমেরিকান পরিবারগুলো শিক্ষার্থীদের নিজস্ব ধর্ম চর্চায় শিক্ষার্থীদের পূর্ণ সহযোগিতা করেছেন।

হ্যাঁ, সকল বালিকা শিক্ষার্থীরা তাদের স্কুলে, পরিবারে, এবং যেকোনো স্থানে বা সময়ে তাদের হিজাব পরতে পারবে। অনেক আমেরিকান মুসলমানই তাদের বিশ্বাস অনুযায়ী হিজাব পরে থাকেন।

যেসব অনুশীলন বা চর্চায় শিক্ষার্থীদের অস্বস্তিকর জামাকাপড় পড়তে হতে পারে, সেসব চর্চা থেকে তারা নিজ ইচ্ছায় বিরত থাকতে পারে।

হালাল খাদ্য যেকোনো হালাল খাবারের দোকান থেকে কেনা বা ডেলিভারি অর্ডার করা যেতে পারে। কিন্তু, কোন শিক্ষার্থী হোস্ট ফ্যামিলির কাছে হালাল খাদ্যের দাবি করতে পারবে না। শিক্ষার্থীরা নিজের টাকা দিয়ে হালাল খাবার কিনতে পারে এবং শিক্ষার্থীদের নিজের খাবার রান্না করতে ইচ্ছুক থাকতে হবে। হোস্ট ফ্যামিলিরা সবসময় শিক্ষার্থীদের জন্য হালাল খাদ্যের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে পারবে না।

না, এই প্রোগ্রাম কোনো হাই স্কুল ডিপ্লোমা নিশ্চিত করে না। শিক্ষার্থীরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নবম, দশম, একাদশ বা দ্বাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হবে। তাদের প্রাতিষ্ঠানিক ট্রান্সক্রিপ্ট এবং অন্যান্য কৃতিত্বের সার্টিফিকেট প্রদান করা হবে।

সেটা যুক্তরাষ্ট্রে স্কুল, শিক্ষার্থীর পূর্বের শিক্ষা কারিকুলাম ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষা শ্রেণীর উপর নির্ভর করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই উত্তরটি “না”। শিক্ষার্থীকে বাংলাদেশে একটি বছর পুনরায় করতে হতে পারে । এছাড়াও, দেশে ফেরার পর শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশের শিক্ষা বোর্ডের “ইকুইভ্যালেন্স (সমমান) সার্টিফিকেট” (যদি শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয়) এর জন্য আবেদন করে বিশ্ববিদ্যালয় বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারে।

টিকাদান রেকর্ড প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণ টিকাদানের পাশাপাশি, শিক্ষার্থী যেই অঙ্গরাজ্যে থাকবে, সেটার উপরে ভিত্তি করে বিশেষ টিকাসমূহ দিতে হতে পারে। তাছাড়া, প্রোগ্রামের চূড়ান্ত পর্যায়ে সফল হতে শিক্ষার্থীদের টিবি স্কিন পরীক্ষায় পাস করতে হবে।

প্রোগ্রাম শেষ হওয়ার পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকা শিক্ষার্থীদের পক্ষে অসম্ভব। এটি প্রোগ্রামের নিয়মাবলীর বিরুদ্ধে এবং এই নিয়ম ভঙ্গ করলে শিক্ষার্থী একজন ফেডারেল অপরাধী হিসেবে চিহ্নিত হবে। শিক্ষার্থী পুনরায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা পাবে না।

হ্যাঁ, শিক্ষার্থীরা J -1 এক্সচেঞ্জ ভিজিটর ভিসা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কর্ম ভিসা গ্রহণ থেকে বিরত রাখতে প্রোগ্রাম শেষে দুই বছর শিক্ষার্থীদের দেশে থাকা বাধ্যতামূলক।

YES প্রোগ্রাম নিম্নে উল্লেখিত খরচ গুলো বহন করে।

  • বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা যাওয়া এবং আসার বিমান ভাড়া;
  • প্রিডিপার্চার ওরিয়েন্টেশন এর খরচ
  • আমেরিকান হোস্ট ফ্যামিলি তে প্লেসমেন্ট এর খরচ;
  • মাসিক উপবৃত্তি;
  • স্বাস্থ্য বীমা;
  • এবং প্রোগ্রামের আনুষাঙ্গিক কার্যক্রমের খরচ

Copyright © 2022. All rights Reserved. Developed by Asif.